তোমায় দেখি ঐ একি কোণে, প্রতিদিনি।
দাঁড়িয়ে, মুখখানি লুকিয়ে ঈষাণ কোণে চেয়ে
স্বপ্নের জাল ভেদ করে হারিয়ে যাও হয়তো কোন কল্পলোকে,
আর আমি কল্পলোক ভেদ করে বসে বসে দুর্ভেদ্য জাল বুনি।
শেষ বিকেলের অবসাদে ঘেরা ধূসর প্রকৃতি,
গোধূলির বেলাপরা কলকাকলি সান্ধ্য স্মৃতি
তোমার মৈত্র্যসম, অতিপ্রিয় সে জানি।
দূরপানে চেয়ে অসীমে,
আনমনে হয়তো তুমি নক্ষত্রকে ছুঁয়ে আসো,
মেঘের ভাঁজে ঢেউতুলে
হয়তোবা হারিয়ে যাও পরীদের ডানায় বসে।
আমি অপলক পানে চেয়ে চেয়ে প্রতিবারে
হারিয়ে যাই তােমার অসম দৈহিক নীড়ে।
নিতম্ব স্পর্শী সুশ্রী তব কেশমালায় আমি নক্ষত্র খুঁজে পাই,
অবসাদ দূরে ঠেলে ভেসে বেড়াই মেঘের ভেলায় অযথাই।
সেখানে আমার সমস্ত স্বপ্নের চাষাবাস
সেখানে আমার সমস্ত সুখের বসবাস।
অথচ আমার স্বপ্নের ভুঁই ফুঁড়ে
আগাছাই জেগে উঠে প্রতিবারে।
ভেবেছ কি তুমি, স্বপ্নীল মোহনায় ঘুরে ঘুরে,
মোহজালের অদৃশ্য ছলের কূটকলাকৌশলে জড়িয়ে;
যে সুখ তুমি হেলেছ অবিরাম তা' কি আর আসিবে ফিরে..?