ফুসবাবুর হুঁশ ভারী, বলে কত কথা
আর ভাবে সেই তার মহা নীরবতা।
খড়ো ঘর পেলে সুখে দেয় সে আগুন
নরমের জম হয়ে করে তারে খুন।
ফুসবাবু নিজেকে ভাবে বিদ্রোহী
প্রতিদিন হুংকার ছাড়ে রহি' রহি।


আজকাল ফুসবাবু বলে দিনরাত
আগুন লাগাতে গেলে পোড়ে কেন হাত?
কেন গায়ে এসে পড়ে ঘর পোড়া ছাই?
তাড়াতাড়ি এসবের প্রতিকার চাই।
হাতে কেন লেগে যায় খুন করা রক্ত
"হক কথা" - বলে তার যত আছে ভক্ত।


ফুসবাবুর হুঁশ খুব, করে হুঁশিয়ার
অরাজগের এদেশে থাকবে না আর।
রাখতে হলে তারে চাই প্রতিকার
ফুসবাবু বিনে দেশ হবে ছারখার।