দুই পৃথিবীর মধ্যখানে সদ্য থাকা আঁধার
ফন্দি যে তাঁর সেই শরাবে শক্ত করে বাঁধার।
সেই শরাবের স্বাদ পেয়ে তোর উঠলে জেগে মন
সকল ভুলে দেহ হবে নিদ্রা-নিমগন।


মজনু যখন লায়লার প্রেমে হয়েছিল বিভোর
লায়লার কুকুর লায়লা কিনা ঘটিয়েছিল ঘোর।
হাজার শরাব তেমনি করে বোধকে করে চুরি
সব শরাবে ভরায় না রে সুখে হৃদয়-পুরি।


ইসা নবী হারায় যখন ইশ্বরেরই প্রেমে
গাধাটি তার হারিয়েছিল জবের ক্ষেতে নেমে।
তৃষ্ণা যদি - পান করে নে সাধুর পেয়ালাতে
মরবি জানিস অন্য শরাব নিলে তোর ও হাতে।


নয়ন মেলে দেখিস যত শরাব-পূর্ণ-পেয়ালা
পানের রীতি না মানলে দেয় তারা সবাই জ্বালা।
রাজার মতো হোক তবে তোর অতি উচ্চ চয়ন
মরণ হলে হোক করে তোর সতীর সাথে শয়ন।


বাধন-হারা উটের যেমন অতি দ্রুত গতি -
সাধুর শরাব পানের তরে ছুটলে তেমন মতি,
আঁধার ঘরে ঘোমটা পরে দেখায় যে প্রলোভন
সুখ সাগরে তাঁর সাথে তোর হবে ঠিকই মিলন।