ধর্মাবতার:


কারণ আমি বাঁচতে চেয়েছি
মৃত্যুর নৈ:শব্দ পেতে আছে কান
আমি দেখি না
পেতে আছে ওৎ
বাড়িয়ে দিয়েছি দ্বিগুণ চলার স্রোত


আমি থামতে জানি না
অজস্র কথারা বলায় আমায়
আমার এ হাতে লেখনীরা খেলা করে
চোখ দেখে পৃথিবীর রুপচ্ছটা
শরীরে আমার উদ্দীপনের চ্ছাস্
চলে যেতে চাই অযুত
বছর মাস,


মৃত্যু আমার শিয়রে ফেলছে শ্বাস
আমি উঠে গেছি রশ্মির পথ বেয়ে
আবার উঠেছি আবার পরেছি
উঠেছি আবারও ছোটবার তাড়ণায়
ঠেলে ফেলে দিলে আবারও উঠব
ছুটব আবারও, দ্বিগুণ
ক্ষমতায় I


আমি সৃষ্টি দেখেছি ধ্বংস দেখিনা তাই
গড়তে শিখেছি ভাঙণকে ডেকে
সহ্যের কথা বলি, প্রেমিক দেখেছি
নরক দেখিনা তাই, নোংরামিগুলো
অন্ধ পেরিয়ে যাই I


আমি বাঁচতে চেয়েছি তাই
মৃত্যুকে ডেকে জীবনের কথা বলি
হাসব বলেই বাগানের কাছে
শিশুদের পাশে অগাধ নিয়েছি ঠাঁই
সক্ষম আমি অবাধ মিশেছি
সঙ্গহারার দোষে, হোঁচট খেয়েছি তবু
দাঁড়িয়েছি পৃথিবীর উৎসবে


মৃত্যুরা তবু শিয়রে আমার নিশ্চুপ প্রহরায়
আমি বলি না না সবটাই পারি
বিকল হয়নি এখনও কিছুই
দেওয়া নেওয়াগুলো রপ্ত হয়নি
গোলাপটা আজও টাটকা রয়েছে
ভ্যালেন্টাইন পার করে নিয়ে তারপর ভাবা যাবে।