আমার সোনার থালা গিয়েছে আইজ্জে,
কে এলো চুরি করতো সুরূত হটিয়ে,
সোনার থালার কথা আমি খালি জানি,
কোন চোরা টের পেলো গুপ্ততা ঘটিয়ে।


কেউ জানেনা জানেনা সোনারও থালা
পিতল তুচ্ছতা জানে আল্লাহ্ ওয়ালা।
কেমনে জানি পাইছে টের ফালাফালা।
আমি জানি মুল্য কতো সোনারও থালা।


আমাকে নিয়েছে এক আউলা বাতাস”
ভুলে গেছি থাল যার ছিলাম হতাশ,
সুযোগ সন্ধানী এক পাইলো সুযোগ !
থাল নিয়ে ভেগে গেছে চিত্ত পরিহাস ।


চোর বেটা নিয়ে তার খেলো কিছু ভাত”
নোংরা মন হাত দিয়া চালায়ে দুহাত,
দেহ ছিল রঙ্গচিঙ্গা চিত্ত ছিল কুৎসা
আমার সোনার থালা হইছে নোংরাত।


ফেলে দিল মাটি কুলে পুঁতে গেল হাসি
জানিনা তার কোথায় -আমি পরবাসি,
মাটির ভিত্তে যখন পুতেছে চাপায়
বন ফুল ফুটে ছিল গঁজি উঠে ভাসি।


গাছের ঘোরে শেঁকড় কেড়ে নিলে মাটি
নজর পরিলো আঁখি হাসে কুটিকুটি,
আমার সোনার থালা রয়েছে অক্ষত!
সোনার থালার গায় হাসি খুনসুটি ।
সোনার গায় কখনো পড়েনা যে দাগ
সোনার থালের ভাগ্য নাই সবে স্বাদ,
সবাই পড়েনা যার রাখিতে সুবাদ।
সোনাতেই দাগ নেই চোরা বরবাদ ।


সোনার থাল কখনো যার হারায় না
লক্ষ্য বছর মাটিরে তলেও পঁচেনা
চিরদিন অক্ষতর সোনার ফলক
তারে আমি ভালবাসি অকথ্য ধাঁচেনা।