আঠারো বছর পেরিয়ে এসেছে ও,সে
                     এখনো কাটেনি চাঞ্চলতার ভার,
                     আঠারো বছর বয়স ফুরালো শেষে
                     এখনো ফুটেনি নয়ন রেখা তার ।


                    আঠারো বছর পেরুলে পরশ জাগে
                    কেটে আসে সব পিছনের সংশয়,
                    নতুন ভাবে নানান কথার  রাগে
                    অতীতের যত সুখ দুঃখ আর জয় ।


                     এ বয়সে সে তরুণী না জানে
                     কেন এ জীবন চলিছে মায়া রথে,
                     ভাসিয়ে ভেলা কথার সূরের ত্রাণে
                     কবে এ জীবন শেষ হবে কোন পথে ।


                     আঠারো বছর বয়সে কমল রসে
                     নানান জনের নানান কথার ভিড়ে,
                     দিনগুলি তার কাটে নিরবে উচ্ছ্বাসে
                     গভীর রাতে ফিরে সে একা নিড়ে ।


                      তার এ বয়সে, রংধনু ভাসে মনে
                      কি লাবণ্য কোথা হতে যেন ফুটে,
                      রঙ্গিন আলোর স্বপ্ন জাগে ক্ষণে
                      হৃদয় বাঁধন বারে বারে যেন টুটে ।


                     কোন মায়াবতীর কথার কোন বাণী
                     আঠারো পেরুলেই কণ্ঠে উঠে জাগি,
                     কোথা হতে যেন হৃদয় আনে সে টানি
                     কোথাকার সে কোন মায়া অনুরাগী।


                     আঠারো বছরে সেখেনি সে বারণ !
                     সেখেনি ও'সে চকিত চাহুনি বচন,
                     তব আঠারো বছরেই সময় যাচ্ছে চল
                     যেমন শ্রাবণের মেঘ ভেসে চলা
                            দূর হতে দলে দলে ।।


রচনাকালঃ- ২৫ আষাঢ় ১৪২৮
উৎসর্গঃ- ডলি শায়িন্তা (ঝর্না)