ভোরের প্রথম দিকটায়...
মিঠেল রোদের পরশটুকু মেখে
সংসারের মঙ্গল কামনায় করজোড়ে প্রার্থনা,
এর বেশী হয়তো সে আর কিছুই চায় না!


শ্রান্ত বিকেলের শেষ দিকটায়
দিগন্তের কোলে ঢলে পড়া সূর্য
আলতো ছোঁয়ায় রাঙিয়ে দিয়ে যায় ক্লান্ত মুখ,
জানালার ওপারের পৃথিবীটা যেমন আছে থাক
এপারেই তার জন্য জমা আছে অঢেল সুখ!


এই যে টুকরো সময়...
একান্ত নিজের বলে ও আঁকড়ে ধরতে চায়!


সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত...
শর্ত স্বার্থহীন সারাটাদিন সে ব্যস্ত
কার কখন কী প্রয়োজন...থাকে তটস্থ!


সোনাদানা দামী সম্ভারে নয়
তার সবচেয়ে বড়ো লোভ
এক টুকরো ভালোবাসায়া!
যদি মিলে যায় বন্ধুত্বের একটা হাত
রাতারাতি বদলে যায় ওর বরাত!


যদি কেউ কখনো আসে অলস অবকাশে
হাতটা রেখে কাঁধে দাঁড়ায় এসে পাশে...
তোমার কি খাওয়া হয়েছে?
পায়ের ব্যথাটা একটু কমেছে?
এও যে অনেক বেশী চাওয়া ওর জন্য!
তবু,ভাগ্যবতীও যে নেই এ সংসারে তা নয়
ভাগ্যের কাছেই ওদের হাত পাততে হয়!


তা না হলে...
তবু তো আছে তারাখচিত একটা রাতের আকাশ
পরিপাটী বিছানায় একলা বালিশ,
একান্তে চিলেকোঠা,শর্ত ছাড়াই যেখানে জমা থাকে
মান অভিমান দীর্ঘশ্বাস!


ও জানে, প্রশ্ন করতে নেই
প্রতিবাদে ওর ভরসা নেই...
অভিযোগহীন ছা-পোষা জীবন
টিকে থাকার লড়াইটা জিততে হলে
পথ একটাই...সমর্পণ!
কে ও? যদি প্রশ্ন করে কেউ
ওর একটাই পরিচয়...
ওমুক বাড়ির বউ!