একদা বিকেলে ভাই বোন মিলে
আঙিনায় খেলা করি
বিশাল করিয়া বৃত্ত বেঁধেছি
হাতে হাতে ধরি ধরি
এরই মাঝে দুই কানা মাছি নামে
আঁখি বেঁধে গামছায়
হাত তালি দিয়ে পলায়ন একে
অন্যে তাহাকে ধায়
বাঘ হরিণের মজার দৃশ্য
দেখিতেছে সবে চেয়ে
হৈ হুল্লোতে মুখরিত উঠোন
আনন্দে গেছে ছেয়ে
এরই মাঝে এসে ছাহেরা খালা
সেথা দিল মার ঢালি
পুলকিত হৃদে কিশোর কিশোর
দিতে লাগে হাত তালি
ছুতে ও পালাতে ছুটছে দু কানা
মারে খেলো লুটো পুটি
দর্শক সবে বৃত্ত ভাঙ্গিয়া
হেসে হয় কুটি কুটি
কত আনন্দ ঘন বিকেল এমন
পেরিয়েছি নানা বাড়ি
ভাইয়েরা আজকে বিশ্বে ছড়িয়ে
সেই মহা মেলা ছাড়ি
বোনেরা হয়েছে দুরের গৃহীনি
সংসারে খোঁজে সুখ
সাধনায় দেখে স্বামী সন্তানের
মধুমাখা হাসি মুখ
খালামনিদের সুখময় জীবন
প্রবাস ঘুরেই কাটে
নিবিড় গাঁয়ের সবুজ স্বপ্ন
অস্থ গিয়েছে পাটে
জ্ঞানে ধনে মানে পূর্ণ মামারা
মিল মিশ সমঝতা
এমন পরিবার বাংলাতে আর
হয়তো পাবেনা কোথা।
মামীজী এখন ছেলে,বধু আর
নাতি নাতনির ঘরে
মুঠোফোনে তিনি আজকেও সদা
মোদের খুঁজিয়া মরে
দেরি যদি হয় খবর লইতে
কেঁদেই বলিবে ওরে
স্বামী, সন্তান, সংসার পেয়ে
ভুলেই গিয়াছ মোরে?
আমি কিন্তু তোমাদের ভুলিনি
ভুলবনা কোন দিন
মাঝে মাঝে ভাবি কেমনে শোধিব
এমন মামীর ঋন।
শত সজনের বিয়োগ ব্যাথার
পাহাড় লইয়া বুকে
দিবস রজনী কাটিছে তাহার
হেসে কেঁদে সুখে দুখে।
বড় মামা ছিল বড়র মতই
সবে সম্মান করি
ছোট বেলা শুধু দুরে রইতাম
জোড়ালো কণ্ঠ ডরি
বড় হয়ে বেশ আদর পেয়েছি
ভোলাতো যায়না তাকে
সে মামা এখন সবুজের তলে
নিরবে ঘুমিয়ে থাকে।