হৃদয়ের তটে ভেসে ওঠে আজও
যত সব স্মৃতি আঁকা
হারায়েছে মা, কে করে যতন?
নানার বাড়িতে থাকা।
তুলনা বিহীন ছিল বড় মামি
আদর সোহাগ স্নেহ
ভালোবাসা তার পায়নি একথা
বলিতে পারেনা কেহ।
ত্রিশ অধিক ভাই বোন হতাম
মা, খালা আসিত যবে
মামির হাতের ভাত মাখা খেত
ছোট বড় নেই সবে
তাঁর মাখা ভাত বড় স্বরনীয়
মাখিত এক এক করে
পাখা হাতে মামি বাতাস করিত
প্রতিটি লাইন ধরে।
বড় রা পর্দার অন্তরালে দাঁড়িয়ে
প্লেট দিত হাত বাড়ি
ভরেনা উদর মামিজি আম্মা
মেখে দিন তাড়াতাড়ি
কোথা গেল আজ সে মধুর ছবি
লুকাল পাতার ফাঁকে
কভু ও কি আর ফিরিবে সে দিন
শত যদি খুঁজি তাকে?
চাঁদনি রাতে ভাই বোন সবে
উঠোনে পাতিয়া খাট
কেরাত, গজল, গানের আসর
হইতো জম জমাট।
বড় যে থাকিত, তিনিই নিতেন
পরিচালনার ভার
মামিজি আমার  খাঞ্চা  ভরিয়া
বিলাইতেন খাবার
মায়ের মতই অধিক শ্রদ্ধা
মামিরে করিত সবে
সেই দিন গুলি আজ আর নেই
স্মৃতি হয়ে শুধু রবে।