জগতের মহাপুরুষ তুমি হে মহানবী,
       হে শেষ বিচারের ক্ষণে নাজাত আবেদনকারী,
       হে উম্মতী উম্মতী দ্রোহে অশ্রুস্নাত হৃদয়ের অধিকারী,
       হে দিশারী, মোরা তোমার দেখানো পথের অনুসারী।
             যে শয়তানের লক্ষকোটি বাধার পাহাড় ভেদিয়া
       এসেছিলো অবলীলাক্রমে  এই পৃথিবীর বুকে,
                            নিঃসন্দেহে মহাজ্ঞানী রূপে;
                  এক অন্ধকার আচ্ছন্ন যুগের ভিতরে,
                   নূরানি নক্ষত্র হয়ে জাগিলো ভোরের দিবালকে,
    তোমার পায়ের চিহ্ন পড়েছিলো মক্কার জমিনে!
        সেখানে যেন আজো জান্নাতি দোলনা দোলে,
         হাওয়ায় হাওয়ায় দুরুদের সুর ভেসে আসে,
                     হয়তো নিঃশব্দে নবিজী ঘুমিয়েছে,    
       যেমন করে শৈশবে ঘুমিয়েছিলো মা আমেনার ঘরে;
      হে নবী নিশ্চয়ই তুমি অসীম দরদী হয়ে  এসেছিলে এ ভবে।