আমরা তো রোজ ইস্কুলে যাই অআকখ শিখি
মায়ের আদর মায়ের স্নেহ কেমন করে লিখি।
চিনি তো খুব মিষ্টি লাগে গুড়ের থেকেও বেশি
মায়ের চুমা মিষ্টি কেমন বলতো এলোকেশী।


ঘাড় দুলিয়ে এলোকেশী বলল আমায় হেসে
মায়ের চুমার মিষ্টতা তো রক্তে গিয়ে মেশে।
রাত্রিবেলা ঘুমোতে যাই মায়ের চুমা পেলে
স্বপ্ন দেখি সারাটা রাত রঙিন ডানা মেলে।


আমার ওঠার আগেই দেখি মায়ের সিনান সারা
চুমু দেবে, কপাল ছোঁবে ওঠার জন্য তাড়া।
উঠেই মাকে জাপটে ধরি শাড়িতে মুখ গুজি
দুচোখ বুজে ওইখানেতে আমার জগৎ খুঁজি।


এলোকেশীর কথা শুনে আমার মুখে হাসি
অভয়দাত্রী মা জননীর স্বরূপ বিঘ্ননাশী।
বৃষ্টি ধারায় চাতক পাখির তৃষ্ণা যেমন মেটে
মার পরশে সকল কাজে ভয়-ভীতি যায় কেটে।