হৃদয় ব্যাকুল হলো প্রথম দর্শনে
প্রতীতি উঠলো জেগে মিলবে জবাব
প্রশান্তি নয়ন জুড়ে ঐশ্বরিক ভাব।
নিজেরে প্রস্তুত করে স্বদেশে নির্জনে
কখন আসবে ডাক অস্থিরতা মনে।
সহোদর দুটি ভাই সংসারে অভাব
দৃপ্ত শিখা বিদেশিনী তেজী মনোভাব
গুরুর আহ্বান পেয়ে প্রাচ্যের অঙ্গনে।


ভারতমাতার পায়ে নিবেদিত প্রাণ
জাগরণে অগ্রদূতী অধ্যাত্মসন্ধানী
ভক্তিপ্রাণা শুভ্রপুষ্প ঝরে অনাদরে।
আজো তাঁর ভাবাদর্শ প্রদীপ্ত অম্লান
আমি তো পারিনি নিতে তাঁর মর্মবাণী
দগ্ধ করে অক্ষমতা অশ্রু অগোচরে।