প্রাণের কবি রবীন্দ্রনাথ আজকে তোমার জনম দিন
তোমার গানে তোমার সুরে ভরিয়ে দেবো আমরা দীন।
উপর থেকে দেখছো তুমি সেজেছে আজ ঠাকুরবাড়ি
এ যেন এক মিলনমেলা ভোর হ’লে দেয় সবাই পাড়ি।


কচিকাঁচা নবীন প্রবীণ মেতেছে আজ মহোৎসবে
খুশির হাওয়া জগৎজুড়ে সুরের সুধায় স্নাত হবে।
ফুলের মালা আগরবাতি গন্ধ ছড়ায় আকুল করে
চোখের সামনে হাসছো তুমি অঞ্জলি দিই ভক্তিভরে।


হৃদকাননের কুসুম তুমি সৌরভে হই মাতোয়ারা
দুঃখ ব্যথা হারায় কোথায় নিমেষে হই আত্মহারা।
কাজের সময় বিরাম ক্ষণে সদাই তুমি বিরাজমান
কবিতা বা গানের কলি শক্তি জোগায় অফুরান।


বোশেখ মাসের তপ্ত রোদে জোগাও তুমি তৃষার জল
হৃদয় জুড়াই ছত্রছায়ায় সারাটা দিন রই সচল।
শিমুল পলাশ চলে গেলেও কৃষ্ণচূড়া হাজির আজ
করবী যুঁই কনকচাঁপার অঙ্গ জুড়ে শোভন সাজ।


তোমার কথা কেউ ভুলেনি ভোলা মোটেও সহজ নয়
তোমায় নিয়ে শৃঙ্গে চড়ে অকূলপাথার সাগর জয়।
গঙ্গা নদী সবুজ খেত সব রয়েছে তোমার পাশে
পাখির কূজন জোয়ারভাটা দুরন্ত ঢেউ সদাই হাসে।