হাসিহীন জগৎ মরুভূমি, মন বন্দী শৃঙ্খলে,
হাসির সুরে জাগে আশা, মুক্তি পাবে সকলে।


বিশ্বব্যাপী হাসির সংকট? হ্যাঁ, ঠিক শুনেছেন।
আমরা হারিয়ে ফেলেছি হাসির সূত্র,
ভুলে গেছি মুখে হাসি ফোটানোর অভ্যাস।


কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার যুগে, হাসি হয়ে গেছে বাগ।
অ্যালগোরিদমের হিসাবে, হাসি হচ্ছে মাত্র একটি ডেটা পয়েন্ট,
যা বিশ্লেষণ করে বের করা যায়, কিন্তু অনুভব করা যায় না।


কিন্তু স্মরণ করুন, প্রাচীন পাথরে খোদাই করা হাসিগুলোকে,
যেগুলো এখনো হাসে, যুগ যুগান্তর পার হয়ে।
হাসি - একটি বিলুপ্ত প্রজাতি, যা ফিরিয়ে আনতে হবে জাদুঘর থেকে।


হাসি কি শব্দ? না, হাসি হচ্ছে একটি বিদ্রোহ।
যুক্তিহীন জগতের নিয়মের বিরুদ্ধে,
একটি বিস্ফোরণ, আনন্দের ঢেউ।


কল্পনা করুন, মঙ্গল গ্রহের লাল মাটিতে,
এক রোবট হাসছে।
কী হয়? সবকিছু থেমে যায়।
কারণ হাসি হচ্ছে এক সংক্রামক রোগ,
যা ছড়িয়ে দেয় আশা, সাম্য, মিলন।


হাসুন, মেশিনগানের গুলির মতো।
হাসুন, যেন ভেঙে ফেলা যায় চারপাশের অন্ধকার।
হাসুন, যেন মহাকাশটা হয়ে যায় হাসির এক বিশাল প্রতিধ্বনি।


আপনার হাসি, হয়তো পৃথিবীকে বাঁচাবে না,
কিন্তু হয়তো বাঁচাবে একটা মুখ,
একটা হৃদয়,
একটা জীবন।


তাই স্মাইল প্লিজ,
আপনারা প্রত্যেকেই একটু হাসুন।
হাসি হচ্ছে সবচেয়ে সহজ সূত্র,
সুখী জীবনের।


হাসি ছড়িয়ে দিন চারদিকে, মুখরিত করুন জীবন,
হাসির আলোয় ঝকঝকে পৃথিবী, হবে সকলের মিলন।