নিমিষেই ঘনকৃষ্ণ আঁধার চারিদিক
গগনবিদারী শব্দ বিকট,বিদ্যুৎচমক আচমকা
মুহুর্মুহু বজ্রনির্ঘোষে প্রকম্পিত শঙ্কিত ধরিত্রী


বাতাসের নেই কোন ত্যাজ
দূর হতে ঠান্ডা বায়ু আহত পাখির মতো আছড়ে
পড়ে গা'য়,শিরশির করছিলো সমস্ত শীতার্ত শরীর
তবুও এক অজানা উষ্ণতার আলোড়ন হৃদয় জুড়ে


আরও কিছু পথ চলা
কে জানে প্রকৃতির কোন খেয়ালে দাঁড় করিয়ে নিলো
পথিমধ্যে,নৃত্যের ছন্দে ঝমোঝম বৃষ্টি নামে অঝোরে
চোখ মেলে তাকানো যাচ্ছিলো না কোন মতেই


না কোন মানুষেরই লেশমাত্র নেই
ফাঁকা রাস্তার দু'ধারে দিগন্ত জোড়া ফসলি মাঠ
ছিলোনা কোনই ঘর বাড়ি,জনারণ্য ভূমির বুকে
সূচিত হলো দুটি প্রাণের আকুলিবিকুলির অবসান
দীর্ঘকালের প্রতীক্ষা পেলো আজ প্রতিদান


নেই কোন কোলাহল
নির্জনতা জেঁকে বসেছে প্রতীক্ষিত ধরণির বুকের
পরে,ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে মুষলধারে বৃষ্টি ভিজিয়ে
দিয়ে গেলো নিভৃতে ঝরে যাওয়া অশ্রুআঁখির দাগ
এই কী ইচ্ছে ছিল বিধাতার?তাই কী দীর্ঘ প্রতীক্ষা?


বিহ্বলতার ঘোর চোখে
তখনও আমি আপ্লুত হয়ে কিছুই বলতে পারিনি মুখে
তোমার কাজলা নয়নের গহীনে হারিয়ে গিয়েছিলাম
শুধু নিমগ্ন মননে স্রষ্টাকে ধন্যবাদ দিয়েছিলাম এমন
একটি ক্ষণ একান্ত করে দেওয়ার জন্য।