কথাটি আশ্চর্যজনক নয়! ষড়যন্ত্র তত্ত্বও নয়! সত‌্যিকার ষড়যন্ত্রই হয়!
পরিসরের ওপর ভিত্তি করে বার্কুনের শ্রেণীবিন্যাসের:
ঘটনাকেন্দ্রিক ষড়যন্ত্র, সাংগঠনিক ষড়যন্ত্র, তীব্র ষড়যন্ত্র-
সবই হয় কবিতাকে নিয়ে!
যারা মানবতার কল্যাণে কথা বলে তারা- সবাই কবি।
তাদের কর্মই কবিতা- উপস্থাপনের ধরণ যেমনই হোক।
যুগে যুগে, এদের উপর আঘাত আসেনি কবে?
তবে সব ষড়যন্ত্রই ব্যর্থ হয়, হবে...


হোক আজ অথবা কাল,
অধিকারহারাদের কন্ঠস্বরের ধ্বনি- প্রতিধ্বনিত হবেই!
ষড়যন্ত্র রুখে কবিতা বেঁচে থাকে অনন্তকাল।