বঙ্গবন্ধু , তুমি আজ ওই দূর আকাশের উজ্জ্বল নক্ষত্র
পৃথিবী জুড়ে যত সংগ্রামী মানুষের আদর্শের মূলমন্ত্র
তুমি অমর, অক্ষয়, অনির্বাণ ; তুমি মোদের অহংকার
তুমি শক্তি, তুমি প্রেরণা, সাহস দিয়ে যাবে যুগ-যুগান্তর।


আগস্টের ১৫ তারিখে, যেদিন তুমি শহীদ হলে
তুমি জানো না, সেদিন হাজার প্রতিবাদী জন্মেছে পৃথিবীতে
যারা যুগে যুগে আন্দোলন-সংগ্রাম চালিয়ে যাবে
যত রক্তচক্ষু শাসকের বিরুদ্ধে, তোমার দেখানো পথে।


তুমি কি দেখোনি, তোমার মৃত্যুর পরে কেঁদেছে বাঙ্গালী
হায় মুজিব! কি যে আহাজারি, আকাশ বাতাস হয়ে ভারি
তোমার ঋণ হবেনা শোধ, যা তুমি দিয়েছ জীবনভর
কত জুলুম অত্যাচারে, কেটেছে জেলের তের টি বছর
তুমি জানতে ফাঁসি হলেও একদিন, বাংলা স্বাধীন হবে
তাই হলো, এমন বঙ্গবন্ধু জন্মে হাজার বছরে একজনে
তুমি বাঙ্গালীর জাতির পিতা, স্থপতি বাংলাদেশের
এভাবে তুমি শ্রদ্ধায় সিক্ত, হয়ে ভক্ত, সকলের আদরের।


তুমি চলে গেছ বলে, ঘাতকের দল জোট বেঁধে
বাংলাকে করেছে অশান্ত,  রক্তাক্ত বারে বারে
খুনিরা মিলে স্বর্গ রাজ্য, হয়েছে পুরস্কৃত; দেশ-বিদেশে
রাজনীতির কালো  টাকায় গড়েছে ক্যাডার, অস্ত্রের ঝন্ঝনানিতে
কত হত্যা, আজও শিউরে উঠি, ২১শে আগস্ট, গ্রেনেড হামলাতে
যুদ্ধ অপরাধীরা ও দেখিয়েছে দাপট, যত ইসলামের লেবাছ পরে
ধর্মের নামে বিভেদ করে, এরা ও করেছে মানুষ হত্যা
তুমি দেখ নাই এদের, এরা সব পাকিস্তানী প্রেতাত্মা।


তাই রুখে দিতে, যত বাংলার আবালবৃদ্ধবনিতা
দিয়েছে অনুমোদন, সব খুনির বিচার হবে হত্যা
আজও খুনিরা ঘুরে বেড়ায়, পাবেনা রক্ষা কোথাও
খুনের বিচার হত্যায় হবে, এ নিয়ম শরীয়াহ-তেও
মুক্ত হবে যত অভিশাপ, ঘুচবে দেশের কলঙ্ক কালিমা
শহীদের রক্ত পূতঃপবিত্র, কখনও বৃথা যেতে পারেনা
রাজনীতিতে যে শিক্ষা তুমি দিয়েছ, জীবনের পরতে পরতে
ভুলিনি মোরা আজও আছি, তোমার সেই চেতনাতে।


বঙ্গবন্ধুকে যেন আজও দেখি, একুশের প্রভাত ফেরিতে
শহীদ মিনারের লাল সূর্যের নিচে, বেদিতে ফুল দিতে
আজও ৭ই মার্চের, সেই বজ্র হুংকার শুনতে পাই
যখন ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী  উদ্যানের পাশে দাঁড়াই
সেই অগ্নিমূখী চেহারায় আজ দ্বীপ শিখা অনির্বাণ
জ্বলছে তো জ্বলছে, স্বাধীনতার মার্চের প্রেরণা যোগাতে
মাঝে মাঝে কানে ভাসে, তাঁর পায়ের শব্দ, ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে
যেন তিনি বেঁচে আছেন, নিথর-নিস্তব্ধ ওই জাদুঘরে।


`বঙ্গবন্ধু’ -একটি নাম, একটি ইতিহাস, একটি দেশ ; বাংলাদেশ
জন্মই যার সর্বস্ব দেয়া, ভয়াল ১৫ই আগস্ট, প্রভাতেই সব শেষ
বঙ্গবন্ধু আজ ক্লান্ত, ঘুমিয়ে শান্তিতে, টুঙ্গিপাড়ার ওই মাজারে
চির জান্নাতি হয়ে রবে, কোটি মানুষের দোয়া-আশীর্বাদে ।।