আমিত্ব-ব্যক্তিত্ব চায় অর্জন
স্বভাব-ধর্মে ব্যক্তিত্ব হয়ে ওঠে উদ্যোক্তা
অসংযমী মনুষ্য-স্বভাবের পরিণাম
নির্বিচার-অদমিত সঞ্চয়ে স্তূপীকৃত সম্পদের পাহাড়
শোষণ, নিষ্পেষণ, অবিচারে ভরে ওঠে ধরণী
ধন-মান, সম্পদ-গৌরবের কেন্দ্রীভূত চাপাকান্নায়
চলে ব্যক্তিত্ব-লিপ্সার অবারিত-অনিয়ন্ত্রিত খেলা
বেশী বেশী খেয়ে কেউ অমিতাচারী
কেউবা না খেয়েই করে দিনাতিপাত।


মানুষের স্বভাব-ধর্মের দাবি
স্বজন, অন্তরঙ্গ গোষ্ঠী, দল, স্বজাতিতে
সীমাহীন প্রীতি, ভালবাসা আর প্রতিশ্রুতি
স্বভাবস্নাত চেতন অনিয়ন্ত্রিত হলে
মানেনা কোন ভারসাম্যের নিয়ম, নীতির বাধা
থাকেনা সৃষ্টির প্রতি কোন দায়বদ্ধতা
প্রকৃতির ছন্দ-ভারসাম্যের প্রতিও তোয়াক্কাহীন
চলে ভয়ঙ্কর শক্তির উদ্ধত প্রদর্শনী
মারণাস্ত্রের নিষ্ঠুর শ্লোগানে পৃথিবী প্রকম্পিত
অশান্তির হলাহলে যুদ্ধ, রক্তের স্রোত, মৃত্যু, বিভীষিকা
প্রকৃতিও হয়ে ওঠে ভয়ানক নিষ্ঠুর, প্রচণ্ড অস্থির
যা সামষ্টিক মানুষেরই কামাই।


সৃষ্টির ধারায় নারী-পুরুষ আকর্ষণ স্বভাবজাত
সে আকর্ষণের বাধাহীন অনিয়ন্ত্রিত প্রসারণে
ধর্ষণ, নারী নির্যাতন, অস্বাভাবিক জুলুমবাজি
সামাজিক অস্থিরতায় কম্পিত জনপদ
জ্বলে ওঠে অনিয়ম-অনাচারের বহ্নি শিখা।


মানুষের স্বভাব-ধর্মের অনিয়ন্ত্রিত খেলা
জগতের অস্থিরতা-অশান্তির মূল
মানুষের ব্যক্তিক কিংবা সামষ্টিক পর্যায়ে
স্বভাব-ধর্মের ভারসাম্য আর সুনিপুণ নিয়ন্ত্রণেই
এ-ধরায় ফিরতে পারে শান্তি-সুখের চাবিকাঠি।


এ নিয়ন্ত্রণে চাই যুগপৎ নিবেশ-
     ভারসাম্যের বিধান
           বিবেকের উদ্ভাসন
                   সার্বক্ষণিক নজরদারি
                          বিবেকের অনুপুঙ্খ বিচারে শান্তি ও পুরস্কার।


ফিরোজ, সিদ্ধেশ্বরী, ০১/০৫/২০১৬