সারি সারি বস্তি, লেভেল ক্রসিং এর ধারে,
সেখানে ভিক্ষে করত, একটা বাচ্চা ছেলে,
একটা টাকা রোজই দিতাম, যাবার পথে।


সেদিন লেভেল ক্রসিং বন্ধ ছিল
ছেলেটার দেখা পাইনি, আমারও তাড়া ছিল,
লাইন পেরিয়েছিলাম ট্রেন আসার আগেই,
সমস্ত ইন্দ্রিয় অকস্মাৎ স্তব্ধ করে,
একটা চেনা চিৎকার, বাবুউউউ.....
তারপর একটা আর্তনাদ আর ট্রেনের আওয়াজ,
পেছন ফিরে দেখেছিলাম, সেই বাচ্চা ছেলেটার
লাইনে ইতস্তত ছড়ানো ছিন্নভিন্ন শরীর।


সেদিন ভারাক্রান্ত মনে বাড়ি ফিরছিলাম
ছেলেটা যেই হোক, ভালো তো বাসতাম।
ব্যথিত অন্তরে বুঝেছিলাম,
নিয়মিত করুণা পেতে পেতে,
জন্ম হয় পাওয়ার অধিকার বোধ।
সে অধিকার জীবনের প্রয়োজনে,
ক্ষুধার সর্বগ্রাসী চাহিদা পূরণে,
লজ্জাহীন মনে, জন্ম নেয়,
করুণা পাওয়ার চিরন্তন অধিকার।


চূড়ান্ত অপরাধ বোধে, নিজেকেই করি দোষী,
আমরা প্রত্যেকেই তো, একই দোষে দোষী,
প্রকৃতির অকৃপণ করুণার দান,
জীবন রক্ষার জল,
নিঃশ্বাসের প্রাণ ভরা বাতাস,
সেগুলোও তো নিজস্ব অধিকার বোধে,
লুন্ঠন করি বারে বারে।
আজ অনুধাবন করি,
সে ছেলেটির মৃত্যুর কারণ, অধিকার হরণ,
দায়ী, আমারই অচেতন মন।