কারো কারো প্রাপ্তির ডালিটা
       প্রাপ্তির চেয়ে আশাতীত ভাবে পূর্ণ হয়–
       কল্পনায় ভাববার অনেক আগেই, বহুদূরের
       সুখ মুহুর্তে চলে আসে হাতের নাগালে–
                           কারো কারো খুব কাছে।
       কারো স্বপ্নগুলো সাজানোর আগেই
       ইমারতের মতো পোক্ত হয় রাতারাতি।


       ফের কারো কারো বেলায়
       সম্পূর্ণ উল্টো হিসেব, উল্টো দৃশ্য–
       বঞ্চিত হওয়ার ডালিটা হয়না খালি,
       হতে থাকে দিনের পর দিন শূন্যতায় ভারী,
       অনেক কষ্টে সাজানো সুখ মুহুর্তে;
       মিলিয়ে যায় ধুসর মরিচিকার মতো।
       বাড়ে ঋণের বোঝা দিনে দিনে, ক্ষণে ক্ষণে
       ঝরে পড়ে যত স্বপ্ন, ঘুণপোকারাও
                       খেয়ে ফেলে দৃঢ় বিশ্বাসকে।


       ওরা বলে, 'কর্মে ভাগ্য বদলায়',
       আমি দেখি নিয়তির খেলা– কারো জন্ম
       সোনার চামুচ মুখে, সোনার পালঙ্কে
                               জাদুর কাঠি হাতে।
       কারো জন্ম নগ্ন আঁতুড়ঘরে, শস্য শূন্য
       গোলার মাঝে, যে ঘরে উষ্ণতা খুঁজে খুঁজে
                 হয়রান হয়ে পড়ে থাকে চুলো।


       যদিও কালেভদ্রে দু'চার জন হয়ে উঠে;
       ম্যাক্সিম গোর্কির নায়ক– সেটাও নিয়তির
       নিয়ন্ত্রকের ইশারায়, আফসোস করে
                           কারো কোন লাভ নেই।
------------------------------------------
১২/০৫/২০২০🖋️