প্রাণেরতরী-২০


ঠাকুর বিশ্বরাজ গোস্বামী


নোদিটার বাঁকে বাঁকে বাইলাম তরী,
উঠালাম বন্ধু ভেবে বুঝিনি ছ'অরি।
সাড়েতিনহাত তরী আটখানা কাঠ,
আটারোটি বগি আআছে তিন জন লাঠ।
পঞ্চ বায়ু সারাক্ষণ তরীটার মাঝে,
করি শুধু মিছে খেলা ভোর হোতে সাঁঝে।
ত্রি-নয়ন অন্ধ করে করি আমি ভুল,
ভূলে ভূলে দিন গেলো গেছে দুটি কূল।
পঞ্চআত্মা তরী নিয়ে করে টানাটানি,
জীবাত্মার বসে থেকে ভাঙি তরীখানি।
একাদশী তিথী ধরে  তরীটা বাইনি,
স্রষ্টা যিনি তার পথে কখনো যাইনি।
ইড়া পিঙ্গলায় আর  সুষর্মার পথে
পরাশক্তি আসে যায় প্রাণবায়রথে।
তরী পেয়ে ভুলে গেছি তরীখানি কার
ভুলে গেছি আজ তারে তরী গড়া যার।
ষড়রিপু নিয়ে ঘুরি ভালোবাসা দিয়ে,
তরী ভেঙে দিলো তার সব কিছু নিয়ে।
পঞ্চ ইন্দ্রিয়কে শুধু সত্যি ভালোবেসে
আত্মসুখে তরীখানি ডুবালাম শেষে,
মূলে এই তরীখানি গড়েছেন যিনি,
অবশেষে দূরে সরে গিয়েছেন তিনি।
প্রাণের-ই তরী নিয়ে আছি নিরুপায়,
ভাঙাতরী ডুবুডুবু সন্ধ্যাঘন গাঁয়।