প্রাণেরতরী-৪৫


ঠাকুর বিশ্বরাজ গোস্বামী


প্রভাতী সবুজ ঘাসে
শীতের শিশির হাসে
ঊষার কিরণ বুকে
কুমার কিরণে ভাসে
রক্তলাল টুকটুকে
থাকে না দুপুর বেলা,
রবীরবসনা তলে
প্রাণের খেলা চলে
ইচ্ছার বিছানা পেতে
সাথী পায় দলে দলে
সকলেই থাকে মেতে
দিনরাত সারাবেলা।


ঊষার আলোরক্ষণ
শুরু হয় ভবেরণ
থামেনা ইতিবেলায়
মনে মনে করে পণ
জিতবো ভব-খেলায়
আপন স্বরূপ ভোলে,
শিশির প্রাণটি পেয়ে
প্রাণেরতরীটা বেয়ে
ভবসিন্ধু পাড়ি ধরে
কূলটা হারায় নেয়ে
মরে শেষে ভয় ডরে
তরঙ্গে তরীটা দোলে।


শিশিরের স্রষ্টা রাত
নাকি তার অশ্রুপাত
রবীর প্রসব কালে,
রবী করে খরাঘাত
দুখ নিয়ে শুধু ভালে
মরছে শিশির প্রাণ,
এ সকল লীলা দেখে
চলি তবু এঁকেবেঁকে
প্রাণেরতরীটা নিয়ে
তরী দোলে থেকে থেকে
অকূল সায়রে গিয়ে
প্রাণেশ্বর করো ত্রাণ।