ডমরুধ্বনি
-উজ্জ্বল সরদার আর্য


             নিশির নিদ্রা নিস্তেজ জনতা সতেজ
                    আজ জেগেছে সকলে,
          রজনীগন্ধা'র ঘ্রাণ হৃদয়ে তুলেছে জয়গান
                 যোয়ান-যৌবন তাই ছুটে চলে-
                        রঙিন প্রভাত পথে
           ওগো কে তুমি দাঁড়িয়ে হাত দাও বাড়িয়ে
                পতাকা উড়িয়ে চলো এক সাথে।
             আজ হবে যুদ্ধ ক্রুদ্ধ মনে দাঁড়াও রণে
                  মৃত্যুঞ্জয়ী হও তুমি এই ভুবনে,
                    যদি লাগে রক্ত’ দিও-দান
                 সম্মুখে শত্রু’ নাও কেড়ে প্রাণ
                      দাও গর্দা'ন এই ক্ষণে -
                           স্মরণে জননী
            আর কত হবো ক্ষত ডেকেছি অবিরত
                   হে বীর! আজ আমি রুদ্রাণী।
        
             পেয়েছে প্রাণে তৃষা জেগেছে আজ আশা
                      ছুটে চলি চণ্ডালী বেসে,
            নেবো রক্ত বীজের রক্ত মহিষাসুর নিহত
                  আরো মারবো অট্টহাসি হেসে-
                       আমি দেবী ছিন্নমস্তা
          ওরা দেখে ভয়ে মরে লুণ্ঠিত মনে চরণ ধরে
               দাও ক্ষমা করে আমাদের মূর্খতা।
          আজ আমাবস্যা'র আঁধার আমার আঁখি'তে
              কার কথা কে শুনবে এই রজনী'তে,
            শুধু শুনি ডমরুধ্বনি আকাশে-বাতাসে
                    প্রাণ নেবো’প্রাণের উল্লাসে
                    ভেসে যাবো রক্তের স্রোতে-
                           ওই রুদ্র হয়ে
                  হবে বিধ্বংস বহ্নি'তে ভস্ম
                        পালাবে ওরা ভয়ে।


               তাই পৃথিবী কাঁপিয়ে স্বরিত মাতিয়ে
                         যুদ্ধের সূচনা করেছি,
                    আমি বীর!  আমি মেরেছি -
                         ধরেছি হাতে অস্ত্র
               কেড়ে নেবো আসন জ্বলছে হুতাশন
                   এনে দেবো বিবস্ত্র বুকে বস্ত্র।
        এ'দ্বন্দ্বে'র ঝড়ে উঠলো তটিনী সলিলে ফুলে
                   ঊর্মি এসে পুলি'নে দোলে,
         তাই ভাঙলো বাঁধন, ধরণী ভাসালো প্লাবন,
                    ওরা ঢুলছে মৃত্যুর কলে-
                      হচ্ছে রক্ত মাখামাখি
      সে দৃশ্য দেখে কাঁপে বুক তবুও দেখতে কবি উন্মুখ
                     হয়না যে তার নত আঁখি।


         শুধু মনে পড়ে আ'হতো মায়ের কান্নার কথা
                     অত্যাচারে জীবন গাঁথা,
                 আজ আমি আর হবো না বৃথা -
                          শত্রু হবে শেষ
      নব প্রভাত আসবে হেসে উড়বে পাখি নীল আকাশে
                   ফুলে-ফুলে  রাঙাবো স্বদেশ।


উজ্জ্বল সরদার আর্য
রচনাকাল ইং-৫ ওই জুন ২০১৯ সাল
বাং-২১ সে জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ (বুধবার)
সকাল ১১.২ মিনিটে
নিজ বাড়িতেবসে লেখা।
মধ্য দাকোপ, দাকোপ, খুলনা (বাংলাদে)