.......
    তুমি শুধু নারী নও, তুমি মানুষ
          - জাহিদ হোসেন রনজু।


চিনি, আমি চিনি তোমায় নারী
চিনি, তোমার সব কিছু চিনি।
চিনি তোমার মেঘ কালো চুল,
কপাল, ভ্রু,
হরিণ নয়ন,
কপোল, ওষ্ঠ,বাহু
চিবুক,
বক্ষ যুগল,......... আরো কিছু, আরো
সব চিনি, সবই চিনি জানি।


জানি আমি জানি নারী
তোমায় জানি, সব জানি।
কিভাবে তাকালে তুমি হয়ে যাও প্রেম,
কোথায় ওষ্ঠ ছোঁয়ালে
জ্যোস্নারা ঝরে পড়ে তোমার অধরে,
কোথায় মুঠি হলে হাত
নদীর পাড়ের মত ভেঙে পর তুমি।
কোথায় ছুঁলে তুমি হয়ে যাও অবশেষে নদী।
জানি, আমি সব জানি।
জানি আমি, তবে এও জানি
                   এগুলোই সব নও তুমি।


আমিও চাই না তুমি হও এগুলোই শুধু।


জানি, আমি জানি তুমি নারী, মহিয়সী নারী,
তুমি জায়া, কন্যা, ভগ্নি, পুত্রবধু,
জানি তুমি জননী আমার।
তবু জানি এগুলোই সব নও তুমি।


আমিও চাই না এগুলোই তুমি হও শুধু।


তুমি কবি
তুমি চাকুরীজীবি
তুমি সৈনিক
তুমি নাবিক
তুমি আকাশ পথের বৈমানিক।
তুমি খেলোয়াড় মাঠে ময়দানে,
তুমি চিকিৎসক
তুমি গায়ক
তুমি শিক্ষক
তুমি সেবিকা ঘর আর রণাঙ্গনে।
জানি, আমি জানি তুমি আছো সবখানে।
তবে এও জানি
তুমি শৃঙ্খলে বাধা বন্দী নারী আজও-
তুমি বন্দী আজও মায়ায়
তুমি বন্দী কুসংস্কারের কালো ছায়ায়
তুমি বন্দী নরক স্বর্গের পাঠশালায়
তুমি বন্দী পুরুষের কৌশলী হিংস্র নগ্ন থাবায়।
তুমি বন্দী পুরুষতান্ত্রিক বোধ, মনন আর বিশ্বাসে
তুমি বন্দী স্বার্থবাদী পুরুষের মায়াবী আশ্বাসে।
তুমি বন্দী সাহসহীনতার মূঢ়তায়
তুমি বন্দী সিদ্ধান্তহীনতায়
জানি আমি সব জানি
তবে এও জানি এগুলোই সব নও তুমি।


আমিও চাই না এগুলোই তুমি হও শুধু।


আমি চাই
তুমি ভীরুতা কাটাও,
বুকে সাহসের বাড়ী বানাও।
তুমি আজ হাটো যেভাবে হাটে পুরুষ
তুমি আজ বেধে জোট গুড়িয়ে দাও মিথ্যার ফানুস।
তুমি সিদ্ধান্ত গ্রহণে রাখা হাত-
        ঘর, সমাজ আর রাজনৈতিক অঙ্গনে।
তুমি সামনে এসে দাড়াও আয় ও উপার্জনে।


জানি আমি জানি এগুলোও পারবে তুমি অনায়াসে।
তুমি শুধু জানো যদি বোধে, বিশ্বাসে-
তুমি শুধু নারী নও, তুমি মানুষ
যেমন পুরুষ শুধু নর নয়, মানুষ।।


         ( ২৪.০৩.২০১৬,ঢাকা )