ওরে, জগত ছেড়ে জগতটা কী নেয় কখনও বিদায়?
কেমন করে বল দেখি জল আদ্রতাকে হারায়?
ভাবিস কী তুই আগুন দিয়ে নিবিয়ে দিবি আগুন?
দেহের ক্ষত ধুতে সেথায় ঢালবি আরও খুন?

যতই দ্রুত দৌড়াবি তুই ছায়াও যাবে সাথে
মুছতে তারে থাকবি কী তুই সারাক্ষণই রাতে?
শেখ রে এবার ছায়ার সাথে দিনের আলোয় বাঁচা
যেমনটা চাস তেমন করে ছায়াকে তুই নাচা।

পারিস যদি সূর্যটা ঠিক ধরতে মাথার 'পরে
দেখবি তখন ছায়াটা যে আপনি যাবে মরে।
পুড়বি নিজেও ছায়াটাকে মুছার যদি সাধ
অন্ধকারেও পেতে পারিস আলোর আশীর্বাদ।

হৃদয়টাতে হয় কখনো পাপের আচ্ছাদন
একেবারে মুছতে গেলে হবেই যে তোর মরণ।
ভয়-শংকা বুকে নিয়েই আশায় লুটা মাথা
দয়ার বৃক্ষ ছায়া দেবে, ঝরাবে তার পাতা।

যে বৃক্ষের নিচেই থাকে ঝড়-বজ্রের ভয়
যুগে যুগে ঋষির সাধন তার নিচেতেই হয়।
আলো-ছায়ার উত্স যে জন তারে মাথায় রেখে
তার ছায়াতে নে দেখি তোর নিজের ছায়া ঢেকে।