মন যখনই চায় রে তোরে জড়িয়ে ধরি বুকে
অঙ্গেতে তোর অঙ্গ রাখি নয়ন মুদি সুখে
তোর ও হাসির ঝিলিকখানির সুড়সুড়ি নিই পিঠে
চোখে মুখে তোর চুমুটা লাগে যখন মিঠে
দুষ্টু রে তুই ঠিক তখনি বন্ধ করিস হাসি
আমার বুকের মধুর সুখের গরমটুকু নাশি'।


অঙ্গে আমার ঢেউ খেলে যায় শীতল শিহরণ
মগজ ভাবে আসলো বুঝি হায় রে কী মরণ!
নিঃশ্বাসে তোর কী বিষ আছে কান দুটি মোর মাপে
নয়ন বুজে নীলকণ্ঠক চুয়াল দুটো কাঁপে।
তখন আবার ফিক করে দিস যেই না নিলাজ হাসি
অঙ্গেতে তোর অঙ্গ দিয়ে গরম নিতে আসি।


তোর হাসিতে বরফ জমাট মান-অভিমান গলে
তোর হাসিতে নাচন আনে শীতল নিথর জলে।
তোর হাসিতে গাছের পাতা বিবর্ণতা ভুলে
ঋতুর কুমার আসার আশায় সাজে রঙিন ফুলে।


আয় না বসে তোর সাথে খাই মজার শীতের পিঠা
আখ-খেজুরের ঝগড়া শুনি কার কি বেশি মিঠা।
বলি তোরে, যাস না রে আর, আমার সাথেই থাক
দারুন শীতে অঙ্গ আমার এমনি গরম রাখ।


যুগের পরে যুগ যাবে তোর খেলে এ দুষ্টামী
কয়দিনই বা সেই খেলাতে থাকবো রে বল আমি?