পরের জনমে রাত জাগা পাখির
ঘুম হয়ে নেমে আসব ম্লান দুটি আঁখির মাঝে,
কখনোও প্রিয়তমের পথ চেয়ে বসে থাকা
সেই মেয়েটির কষ্ট ঢাকা বুকের ভাঁজে ভাঁজে।
যে নষ্ট বুকে হয় গাঁজার চাষ
যে নষ্ট বুকে হারিয়ে যাওয়া প্রেমিকার সহবাস,
আমি সেই বুকে ঘুম হয়ে
নির্জনতার সুরে ফেলবো দীর্ঘ নিঃশ্বাস।
যে পথিক পথ হারিয়ে কান্না ভেজা সুরে
মাথা নত করেছে প্রভুর দোয়ারে,
আমি তার বুকে তারার মত প্রশান্তি ঢেলে দিতে
নির্জন রাতে ঘুম হয়ে দাঁড়াব তার শিয়রে।
যে মায়ের ছেলে গেছে দেশের কাজে
যে মায়ের বুক ফাটে কান্নার আর্তনাদে,
আমি মায়ের চোখে জোছনা বিছিয়ে দেবো
যে জোছনার গন্ধ পাওয়া যাবে চাঁদে।
যে ভিখারীর অনাহার নিত্য সঙ্গী
সে শীতে কাঁপে, বৃষ্টি ভেজে, রোদে পুড়ে
তবুও জোটেনা একমুঠো অন্ন
আমি ঘুম হয়ে শান্তি পাঠাব তার ঘরে।
যে বৃদ্ধের শরীরে রোগের রাজ্যশাষণ
যে বৃদ্ধ ঘুমাতে চায় চিরতরে,
আমি সেই বৃদ্ধের শান্তির ঘুম হয়ে
মুক্তির ফুল হয়ে ঝড়ব নীরব কবরে
সবার চোখে ঘুম ঢেলে, ধূলোর গায়ে শ্মশান মাখাব
অবশেষে
মৃত্যুর মত আমিও ঘুম হয়ে ঘুমিয়ে যাব।


০১/০৯/১৯...