স্মৃতিময় নানা বাড়ি (২)
একদা মামির হাতে খেতেছিনু ভাত
ছেলেটি তাহার এসে
অভিমানি সুরে কহিতে লাগিল
জননীরে ভালোবেসে।
সব মায়েরা ভালোবাসে সন্তানে
তুমি নিষ্ঠুর মা
জনম দেখিলাম ওদের খাওয়ালে
মোদের খাওয়ালে না
জবাবে মামিজি তাহারে কহিল
আমিতো তোদের আছি
ব্যথিত ওদের জগত সংসারে
জননী যে নেই বাঁচি
ওকে না দিয়ে তোকে যদি দেই
আদর সোহাগ ভরে
দু:খে ভেবে নেবে, ‍ওর মা হলে
খাওয়াত এমন করে
সে দিনের কথা আজো মনে হলে
নয়নের জলে ভাসি
জীবন পথের অনেক পাথেয়
শিখায়েছে রাশি রাশি
হিরার টুকরো মামিজি আমার
ধরায় হবেনা তুল
আজীবন তিনি ক্ষমার দৃষ্টে
দেখেছে মোদের ভুল
স্নান করাত চুল বেঁধে দিত
অসুখে করিত যতন
এমন মামি দেখেনি বুঝি কেউ
পায়নি এমন রতন
মা হারানো ব্যাথা বুঝি নাই কভু
পাইয়াছি যবে তারে
তা না হলে জানি ব্যাথা কতখানি
বুঝিতাম হারে হারে।