হৃদয়ের দুয়ার খুলে বাহিরে এসে    
সূর্যোদয় দেখবার জাগ্রত স্পৃহায়    
ইচ্ছাশক্তির নগ শৃঙ্গ থেকে দেখি    
চারিদিক ঝাপসা ঘন কুয়াসায়।    
পূবের দিকে একটি পাহাড়ি পথ    
তার কোল-ঘেঁষে গেছে বহুদূরে    
পাহাড়টি পেরিয়ে এসে অবশেষে    
ঝাঁপিয়ে পড়েছে এক মহাসাগরে।    
তারপর এক মোরাম ছড়ান পথ    
যেন সাগরের বুক চিঁড়ে বহুদূরে      
দিগন্ত সীমানায় পৌঁছে ঢুকে গেল  
উড্ডীয়মান রক্তিম সূর্যের গহ্বরে।    
কঙ্কালসার শোষিত সব মানুষেরা      
রক্তিম রশ্মি-গুচ্ছে অবগাহন করে    
বক্ষপিঞ্জরে একরাশ যন্ত্রণার ভারে          
বাঁচবার দিশা খুঁজতেই দিশেহারা।      
ছিয়াত্তরের মন্বন্তরেও মরেনি ওরা      
যদিও মরবার আদর্শ সময় ছিল।  
মুক্তির পথ খুঁজবেই এই অঙ্গীকার  
তখন অন্তর মাঝে পুষে রেখেছিল।
এখন ওরা চলবে প্রতিকূল স্রোতে
বাঁচার ঠিকানাটুকুর হদিশ পেতে।