তাকে নিয়ে চারিদিকে চলছে শোরগোল।
নেশা-চুর মাতালের দশা।যেন মস্তিষ্কের
স্নায়ুর মতো ছড়ানো নগরীর পথঘাটের
সিগন্যালে বেঁধেছে গোল।থেমেছে নগরীর
প্রাণের স্পন্দন।
সেদিনও বিশ্ব জয়ের স্বপ্নে বিভোর ব্যস্ত
নগরী।সব পথচারী ও যানবাহন সবুজ
সিগন্যাল দেখে ছুটত,ঘোড়দৌড়ে জকির
নির্দেশে টগবগে ঘোড়ার মতো।
সব দেশকে পিছনে ফেলে যেতে চাইতো
সবার আগে,এখন স্নায়ু-শূলে বিদ্ধ দাপুটে
করোনা ভাইরাসের দৌলতে।
পথ ঘাট সর্বত্র শুনশান,বন্ধ অগণিত যান,
দোকানের সাটার।পিঁপড়ের মতো কর্মব্যস্ত  
সেই মানুষেরা,এখন স্বেচ্ছা-বন্দী নিজেদের  
ঘরে,করোনা ভাইরাসের ভয়ে।            
শ্মশানের নিস্তব্ধতা ভেঙ্গে রোগীদের নিয়ে
এম্বুলেন্সে নিয়ত ছুটছে সাইরেন বাজিয়ে।
দোলকের মতো যাতায়াত করছে প্রতিদিন
হাসপাতাল ও রোগীদের বাড়ি আক্রান্ত সব
রোগীদের নিয়ে।
জকির নির্দেশে মারণ খেলা জমেছে ভারী।
অভিযোজনে ব্যর্থতার দায়ে প্রতিদিন মারা
যাচ্ছে অগণিত নরনারী।ভয়ঙ্কর মহা মারি।
এ বিশ্ব জুড়ে লাল সংকেত রয়েছে জারি।