প্রত্যাখ্যান
----
কি করে আমায় ছুঁবে তুমি বল?
তোমার নীরব প্রত্যাখ্যান
কি করে আমাতে পৌঁছাবে বল?
এক,দুই,তিন,চারটি একত্রিত ঘৃণা আর অবহেলা আমাকে স্পর্শ করেনা।
তোমাদের জোট বাঁধা সযত্ন প্রতিহিংসা, ঘৃণার সাধ্য কি আমায় স্পর্শ করে?
আমায় ঘিরে আছে অজস্র ভালবাসা আর মমতার বলয়।
কখনও সেই বলয়ে ভায়ের ভালবাসা হাসে।
অজস্র বোনের দোয়ায় ঋদ্ধ আমি।
কখনও অবোধ অবাধ্য প্রেমিকেরা সযত্নে আমার আঁচলে ঢেলে দেয় একডালি উপহার,
সেই উপহার আমি বলয়ের এককোনে নিভৃতে রেখে দেই।
আর সবচে যে ভালবাসা আমায় ঘিরে রাখে-
আমায় ধন্য করে,পবিত্র স্নানে স্নান করি আমি
একদল কুঁড়িয়ে পাওয়া মানিক।
অপত্য স্নেহ বিলিয়ে আমি মাতৃসমা হয়ে যাই।
ভালবাসার বলয় কেবলই আমায় সুরক্ষিত করে।
তোমাদের ঘৃণা নিষ্ফল কাঁদে আমার দুয়ারে দাড়িয়ে।
মহাবিশ্বের মত বিপুলা ভালবাসার বলয় ডিঙিয়ে
কি করে আমায় স্পর্শ করে তোমাদের ঘৃণা?
ঘৃণাদের নিক্ষিপ্ত বাক্যবাণ উপেক্ষার সমস্ত রসদ আমার মজুত।
ভালবাসার একটি বলয় আমায় সততই ঘিরে রাখে।
আমি সততই নিরাপদ থাকি,আমি সততই হাসি আনন্দলোকে।
ঘৃণারা দূরেই থাকে আর ক্ষত বিক্ষত হয়।
আমার আছে মমতার মায়াজাল।
আমি মমতার প্রলেপ হাতে নিয়ে বসে থাকি,
এক,দুই,তিন,চারটি হৃদয়ের ক্ষত মুছে দিব বলে।
ঘৃণারা জানেনা ভালবাসা কি!
তাইতো তারা একই সমতটে দাড় করাতে চায় সম্পূর্ণ বিপরীত দুই মেরুকে।
আমি যে আমারই মত- আমার ভালবাসার বলয় তাই কেবলই আমার মত।
আজন্ম অধিকার দিলাম তোমাদের, কর দেখি আমায় প্রত্যাখ্যান!
আমায় উপেক্ষিত,কলংকিত আর নিস্ক্রিয় করার সমস্ত আয়োজন গুছিয়ে সম্পন্ন কর অগোচরে।
আমার তৃতীয় নয়ন ঠিক আমায় জানান দেয়।
বিফল হবে যাবতীয় ঘৃণা।
ভালবাসা কেবলই ভালবাসা বরণ করে নেয়।
ঘৃণারা যতই একত্রিত হোক না কেন
কেবলই শক্তিহীন বৃথা আস্ফালন।
আমার ভালবাসার বলয়টি সুরক্ষিত অজস্র ভালবাসায়।
ক্রমশ আরও বিবিধ ভালবাসা বলয়টিকে কঠোর পাহারা দেয়।
যাবতীয় ঘৃণা তোমায় আমার সযত্ন করুণা,
তোমার আপ্রাণ আয়োজন আমায় স্পর্শে অপারগ।
তোমাদের ব্যর্থতা আমায় কষ্ট দেয় যদিও,
তবুও আমি বারংবার পরাজিত দিতে এতটুকু স্থান।
আমার হৃদয়ে যে শুধু ভালবাসারাই বাস করে।
ঘৃণা আর ভালবাসার সহাবস্থান শুধুই অলীক কল্পনা,
তোমরা দূরে বসে ক্রমশ নিস্তেজ হয়ে অক্ষম আক্রোশে
ফোঁস ফোঁস কর।
আর আমি?
আমার ভালবাসা নিয়ে খুব ভাল আছি,খুব ভাল থাকব আমরণ।
----৯/৭/২০১৮