বর্ধিষ্ণু নখ নিয়ে অশেষ বিড়ম্বনা  
প্রায়শ নীরবেই সইতে হয় যাতনা।
তার উপদ্রুপ মাত্রা বাড়লে নিয়ত  
অনুভবে সেটি চন্দ্র-কলঙ্কের মতো।
জীবের আত্মরক্ষার্থে রহে বহিঃরঙ্গে          
সু-দৃঢ়ভাবে ওরা সেঁটে থাকে অঙ্গে।  
স্বভাব-দুষ্ট নখ নিয়ে ছেলেখেলায়    
মৃত্যুও ঘটে যেতে পারে অবেলায়।
ওদের দিয়ে চুলকানি মেটালে রঙ্গে  
জ্বালাসহ রক্তক্ষরণ ঘটে সঙ্গে সঙ্গে।
শরীর-যন্ত্রকে সুস্থ সাবলীল রাখতে
স্নায়ু বর্জিত এই রেচন পদার্থটিকে
নিপুণভাবে বাদ দিলে কেটে ছেঁটে  
যন্ত্রণা ও রক্তক্ষরণ হয় না মোটে।
ওদের সমূলে উচ্ছেদ লাগি অযথা  
অঙ্গ-প্রত্যঙ্গদের বাদ দেওয়া বৃথা।
প্রাজ্ঞরা বিলক্ষণ জানেন এই কথা
এ’নিয়ে মতান্তর দেখেছে কে,কোথা!
অঙ্গ-উচ্ছেদ বুদ্ধি-বৈকল্যের সামিল  
বুদ্ধিদীপ্ত কাজ করা চাই সাবলীল।