আস্তা এখন উঠেই গেছে পাশে চলার কোথায়?
ভরসা নাই পায়ের তলার চলার হাঁটি জুতায়।
ঘাম কি আছে মজবুত তাঁতে ভাবছে পথিক কতো
জুতার লাগি পথিক তাহার ইজ্জত যাবার মতো।


আস্তা আছে কতোটুকু অপর লোকের উপর,
কী করে কী এমন করেই বুক হয় দপর দপর!
আস্তা আছে মানুষ জনকে মাথা পিঠ মুখ ঘার,
কথা দিয়ে বেমুখ হইছে নাকচুকা হয় বার।


আস্তা আছে ঘরের কোনার থাকার কোনো ঘির,
কেনো ফাটল সংসার ছিন্ন সোনার মাটির চির।
আস্তা কোথা গেছে ভরার নৌকার মতো ডুবি,
কথায় কথায় কান কথায় তার কানসে চুপাচুপি।


আস্তা গেলো গেলে সব কী তাহলে সব উঠে,
চাইলে নাই তার লেনদেন খাতির পাওনা অর্থ জোটে।
অপর ঘারেই চেপে বসে স্বার্থ নেশার কুটুম।
মিথ্যা কথায় নাইরে থাকা গর্জে থাকা ভুতুম।
আস্তা আছে বাজার থেকে কেনা কাপর মোটে,
চকচকা খুব দেখলে কী হয় ধুইলেও রঙ উঠে।


গৃহ থেকে বেরাই চলে তবে যদি পায়,
কি করে কী ভেবে নাহি বিশ্বাস নাহি যায়।
ঘরে থেকে বেরিয়ে কী কেহু যদি গেলে
কখন আসবে এমন কিছু তাল ঠিক নাহি মেলে।


আস্তা আছে কোথায় থাকা বানা কেনা খাবারে
ভেজাল ভেজাল কি হয় দামে বেশি মেশি বাবারে।
আস্তা আছে চলার থাকার পস্তার ভয়ে পকেটে,
দোয়া কালমার গলার লটকা আছে খটকা লকেটে।


আস্তা নাই তার সঙে চলার ভরসা নাই মানুষে,
আগে ভাগড়ে কাটলে সাপলে ভাগড়ে সঙ্গ পানুসে।


সহযোগিতা  মোঃ আলামিন নুর