নাম ধরে খুঁজে গেছি চার অক্ষরে একটি নাম,
কালে উত্তর দক্ষিণ দুই মেরু নাহি চিঠি খাম।
আধুনিক বর পেটা যুগে অতি নাগালিম থাকা,
চাঁই যদি খুঁজে পাই ফেসবুক গুগুলের চাকা।
চিনা আছে তার মুখ তার নাই ভুল ছবি ফুটে,
অগণিত আইডির সমীহার চোখ বুলি জুটে।
এক নাম খুঁজে আমি অগোচর অচিনার মতো
বন্ধু নাম থেকে হই আপনার থেকে আছি তত।


তোমারই এক টাই নাম জপি আজই ঝাঁঝালো,
ভুলে গেছি বড্ডতার তোমাকে মনে রাখি বিধলো।
আমারেই সে পুড়ালো অগ্নিতে নাই জ্বালিয়ে পুড়ে
তাকে নাহি পেয়ে মোরি জগতের মন নড়োবড়ে ।


নাম ধরে তাকে ডাকি তরে তরে নাই খুঁজে পাই
যথাযথ খুঁজি এক নামে চাই চলি দেখি পথ চাই
চার পায় চার বায় রূপ  ছবি বাজি লুকো মত,
মধুরতা নতুনের  প্রিয় অক্ষর খুঁজি সহমত।


সেই নাম ধরে আছি অতিশয় মনঃ মনোমুল।
অপলক  মুখে  খুঁজে লই পাই আর নব কুল।
পুরাতন ভুলে গেছি ভুলিকি ভুলনি বলি নাই,
তার কূলে লুটেপুটে, এর বেশি বাসা বাঁধে ঠাঁই ।
নাম ধরে খদ্দরের তার তরে আর খুঁজে লই,
শরমন রম তার আঁকার রষিকারটি  নাই।



ক,,
৭✝৭,,,,,,২
মায়ের উপদেশ পড়িলে যে মনে,
এখনো ধমনির বুক শিহরিত জাগে
যেমনি ছিল তার শাসন বারনতা খানি
আদর্শ মমতা ভরিতো রাখিতেই আগে।


মায়েরও মাজান একদিন গিয়াছে চলে,
নানা জান  আলোয় দমচেপে দাঁড়িয়ে  কহে,
মা নাই  ঘরে যেও নাহ
ভোগ না পেটে খেও নাহ।
আমারই মা টাই  ঘরদুরে শুণ্য বহে।


সেই কথা খানিক আমাকে উপচেই বলে
মোর ঘরদুয়ার তার কথা আমার ছলে,
আমার মায় নাই ঘরের আলোয়ানে কেহ
ডাকেনা বাতায়নে আমার গহীনের তলে।


চোখের দৃষ্টিতে দেখি ঐ চলাচল হাঁটে ,
এখনো তাঁহারই  রেখে দেওয়াই কুলা,
গৃহের নজর চোখের ভাসমান মাল,
এখনো উঠাইনি অগ্নির ছাইয়ে চুলা।